আশুরা দিবসের ইতিকথা: শুধু কী কারবালা এর কারণে এই দিনটি মাহাত্ম্যপূর্ণ?

এ দিনে আসমান জমিন ও লওহ কলম সৃষ্টি করা হয়েছে৷
এ দিনে আসমান জমিন ও লওহ কলম সৃষ্টি করা হয়েছে৷

আশুরা দিবস অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ,মর্যাদাপূর্ণ ও মাহাত্মপূর্ণ৷ ইতিহাসের পাতা উল্টালে চোখে পড়ে এদিনে সংঘটিত অনেক বড় বড় ও গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা৷ অসংখ্য ঘটনার থেকে সংক্ষিপ্ত কিছু নিম্নে আলোকপাত করা হলো৷

১৷ এ দিনে আসমান জমিন ও লওহ কলম সৃষ্টি করা হয়েছে৷

২৷ মানব জাতির আদি পিতা হযরত আদম কেও এ দিনে সৃষ্টি করা হয়েছে৷

৩৷ হযরত ইদ্রিস আ কে আসমানে উঠিয়ে নেওয়া হয়েছে৷

৪৷ হযরত নুহ আ এর কিস্তি ভয়বহ প্লাবনের পর জুদ পাহারে নোঙর ফেলে৷

৫৷ ইবরাহিম আ এর জন্য প্রজ্জ্বলিত অগ্নিকুন্ড আরামদায়ক পুস্প কাননে রুপান্তরিত হয় এবং হযরত ইবরাহিম আ খলিলুল্লাহ (আল্লাহর বন্ধু)হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেন

৬৷ হযরত ইসমাইল আ পৃথিবীতে শুভাগমন করেন৷

৭৷ হযরত ইউসুফ আ কারান্তর শেষে মিসরের শাসনকার্যে নিয়োজিত হন৷

৮৷ দীর্ঘ বিচ্ছেদের পর হযরত ইউসুফ আ স্বীয় পিতা হযরত ইয়াকুব আ এর সাথে সাক্ষাত লাভ হয়৷

৯৷ হযরত মুসা ও তার কওম ফেরাউনের জুলুম থেকে মুক্তি লাভ করে৷

১০৷ হযরত মুসা আ এর উপর তাওরাত নাযিল হয়৷

১১ ৷সুলাইমান আ হ্রত রাজত্ব ফিরে পান৷

১২৷ হযরত আইয়ুব আ দীর্ঘ রোগ-ভোগের পর আরোগ্য লাভ করেন৷

১৩৷ হযরত ইউনুস আ চল্লিশদিন মাছের পেটে থাকার পর সেখান তেকে মুক্তি লাভ করেন৷

১৪৷ হযরত ইউনুস আ এর কওমের তওবা কবুল হয়৷

১৫৷ হযরত ঈসা আ জন্ম গ্রহণ করেন৷

১৬৷ হযরত ঈসা আ ঈহুদিদের অনিষ্টতা থেকে মুক্তি পেয়ে আসমানে উত্তীর্ণ হন৷

১৭৷ কুরাইশের কাফেররা কাবার নতুন গিলাফ লাগাতো এদিনে৷

১৮৷ হযরত রাসুল সা ও খাদিজা রা এর দাম্পত্য জীবনের সূচনা হয়৷

১৯৷ কুফাবাসীর প্রতারণায় রাসুল সা প্রিয় দৌহিত্র হযরত ফাতেমার কলিজার টুকরা হোসাইন রা কে কারবালায় শহিদ করা হয়৷

২০৷ এ মহাগুরুত্বপূর্ণ এ দিবসেই কিয়ামত সংগঠিত হবে৷ (নুজহাতুল মাজালিস,১/৩৪৭,৪৮৷মাআরিফুল কুরআন পারা১১আয়াত নং৯৮, মাআরিফুল হাদিস৪/১৬৮,